নিয়মিত যে ৫ টি খাবার খেলে ফ্যাটি লিভার সমস্যা থেকে মুক্তি পাবেন

ফ্যাটি লিভার সমস্যা কি?

লিভারের চারপাশে চর্বি জমে থাকলে তাকে ফ্যাটি লিভার বলে। মূলত দুই ধরনের ফ্যাটি লিভার আছে – অ্যালকোহলিক এবং নন -অ্যালকোহলিক রোগ। অনিয়মিত খাওয়া-দাওয়ার কারণে আমাদের এমন সমস্যার সম্মুখীন হতে হয়। তাই আমাদের সকলের এই বিষয়ে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া উচিত।

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, ইউরোপ, যুক্তরাজ্য এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে প্রায় ৬০ শতাংশ প্রাপ্তবয়স্ক ফ্যাটি লিভারের সমস্যায় ভোগেন। যদি শরীরের ওজন বাড়তে থাকে তবে এই রোগে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি বেড়ে যায়। অল্প বয়স্করাও প্রক্রিয়াজাত খাবার অতিরিক্ত খাওয়ার কারণে লিভারে চর্বি জমতে শুরু করে। তাই প্রত্যেকেরই এই ধরনের খাবার কম খাওয়া উচিত।

আপনি যদি ফ্যাটি লিভারের সমস্যায় ভুগে থাকেন, তাহলে আপনার প্রধান চিকিৎসা হল স্বাস্থ্যকরভাবে খাদ্য নিয়ন্ত্রণ করা। এই ধরণের রোগকে বলা হয় ফ্যাটি লিভার ডিজিজ এবং এর মানে হল আপনার লিভারে খুব বেশি চর্বি জমেছে। লিভার খাবারের টক্সিনের ফিল্টার হিসেবে কাজ করে। লিভারে ফ্যাট জমতে শুরু করলে লিভারের কার্যকারিতা হ্রাস পেতে শুরু করে। এর ফলে শরীরে বিভিন্ন সমস্যা দেখা দিতে পারে।

তাই ফ্যাটি লিভারের সমস্যা ধরা পড়ার সাথে সাথে আপনার খাবারের তালিকা পরিবর্তন করা খুবই গুরুত্বপূর্ণ। তারপরে আপনাকে প্রচুর তাজা শাকসবজি এবং ফল খেতে হবে। আপনার খাবারের তালিকায় প্রচুর ভিটামিন সি এবং উচ্চ ফাইবার রয়েছে তা নিশ্চিত করুন। পাশাপাশি কম চর্বি এবং উচ্চ ক্যালরিযুক্ত খাবার খেলে শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমবে। শরীরের অতিরিক্ত ওজন কমানোর পাশাপাশি লিভারের চর্বিও কমতে থাকবে।

ফ্যাটি লিভার কিভাবে বুঝবেন-

১. অনেক সময় না জেনেই লিভারের কাজ করার ক্ষমতা ব্যাহত হয়। কখনও কখনও বিলিরুবিন বৃদ্ধি পায়। অনেক ক্ষেত্রে বছরে একবার নিয়মিত চেকআপের সময় বিলিরুবিন বেড়ে গেলে বা লিভারের এনজাইম পরীক্ষা করা হলে ভালো হয়।

২. ফ্যাটি লিভারের সবচেয়ে বড় লক্ষণগুলির মধ্যে একটি হল সাধারণ কোমরের আকারের চেয়ে বড় বা আরও নির্দিষ্টভাবে, একটি আবক্ষ।

৩. লিভারে চর্বি জমে স্বাভাবিক কাজকর্মে ব্যাঘাত ঘটায়। ক্ষুধা হ্রাস, ক্ষুধা হ্রাস, দ্রুত ওজন হ্রাস, বমি বমি ভাব, বমি, খুব দুর্বল বোধ করা এবং কিছু করতে না চাওয়া।

৪. ফ্যাটি লিভারের কারণে মাথাব্যথা, মেজাজ এবং হতাশা, হঠাৎ কম্পন সহ বিভিন্ন উপসর্গ দেখা দেয়।

৫. নখ বা চোখ হলুদ হলে অবিলম্বে চিকিৎসকের পরামর্শ নিয়ে লিভার ফাংশন টেস্ট করাতে হবে।

৬. হজমের সমস্যা এবং অ্যাসিডিটির সমস্যা হতে পারে।

৭. অতিরিক্ত মদ্যপান লিভার রোগের ঝুঁকি বাড়ায়। এ ছাড়া টিবির ওষুধ, হরমোনের ওষুধ, কিছু ব্যথার ওষুধসহ কিছু অ্যান্টিবায়োটিক লিভারের কার্যকারিতা কমিয়ে দিতে পারে।

আসুন জেনে নেই যে ৫ টি খাবার খেলে লিভার ফ্যাটি কমে যাবে

১/ কফি

কফি

একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে, যারা নিয়মিত কফি পান করেন তাদের ফ্যাটি লিভারের সমস্যা কমতে শুরু করে। যারা নিয়মিত কফি পান করেন তাদের লিভার অন্যদের তুলনায় ভালো থাকে। কফি লিভারের বিভিন্ন ধরনের প্রদাহের বিরুদ্ধে লড়াই করে এবং লিভারে স্বাস্থ্যকর এনজাইমের সংখ্যা বাড়ায়। তাই বিশেষজ্ঞদের মতে, প্রতিদিন কফি পান করা লিভারের জন্য বিশেষ উপকারী। তবেঁ আমরা বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই কফি অতিরিক্ত পরিমাণে পান করে ফেলছি। মনে রাখবেন, খালি পেটে কখনোই কফি পান করবেন না এবং এতে পেট ফাঁপা, গ্যাস্ট্রিক জনিত সমস্যা হতে পারে। নিয়ম মেনে কফি পান করতে পারলেই আপনি উপকৃত হবেন।

২/ ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড

ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড

লিভারের রোগীদের জন্য ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি এসিড কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা আপনি কি জানেন। আর এই ফ্যাটি এসিডের পরিমাণ সামুদ্রিক মাছের মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাওয়া যায়। এই মাছগুলির মধ্যে রয়েছে সালমন, সার্ডাইনস, টুনা এবং ট্রাউটের মতো ফ্যাটযুক্ত মাছে অনেক পরিমাণে ওমেগা-৩ ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে। এই মাছগুলিতে প্রচুর পরিমাণে ওমেগা-থ্রি ফ্যাটি অ্যাসিড থাকে, যা লিভারে জমে থাকা ক্ষতিকর চর্বি দূর করতে সাহায্য করে।

৩/ আখরোট

আখরোট

আপনি কি জানেন?, লিভার থেকে অতিরিক্ত চর্বি অপসারণে আখরোটের অনেক ভূমিকা রয়েছে। এই বাদামে রয়েছে ওমেগা ৩ ফ্যাটি এসিড যা লিভারের চর্বি কমাতে সাহায্য করে। এই বাদামে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ফাইবার, অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা শরীরকে সুস্থ রাখতে সাহায্য করে। আখরোটের নিয়মিত ব্যবহার লিভারের চর্বি কমায় এবং লিভারের কার্যকারিতা বাড়ায়। এজন্য চিকিৎসকরা প্রতিদিন আখরোট খাওয়ার পরামর্শ দেন।

৪ / গ্রিন টি

গ্রিন টি

আমরা অনেকেই গ্রিন টি এর উপকারিতা জানি না। আবার অনেকে এই চা পান করার উপকারিতা নিয়ে খুব একটা মনোযোগ দেন না। সবুজ চায়ের সর্বোত্তম সুবিধা হল লিভার থেকে চর্বি অপসারণ। অতএব, বলা যেতে পারে যে, যারা লিভারের সমস্যায় ভুগছেন তাদের জন্য সবচেয়ে ভালো পানীয় হল গ্রিন টি। এই চা লিভারের চর্বি এবং কোলেস্টেরলের মাত্রা কমাতে সাহায্য করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, সবুজ চা আমাদের স্বাস্থ্যের জন্য বিশেষ উপকারী।

৫/ জলপাই তেল

জলপাই তেল

আপনি জেনে অবাক হতে পারেন যে, অলিভ অয়েল শরীরের অতিরিক্ত ওজন এবং লিভারের চর্বি কমায়। অলিভ অয়েলে রয়েছে অতি প্রয়োজনীয় ওমেগা ৩ ফ্যাটি অ্যাসিড। লিভারের ফ্যাট এবং শরীরের ওজন কমাতে এই তেল বেশ ভালো কাজ করে। বিশেষজ্ঞদের মতে, জলপাই তেল দিয়ে রান্না করা খাবারের পুষ্টিগুণ বজায় রাখার পাশাপাশি সুস্বাস্থ্য বজায় রাখে এবং রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ায়।

রেফারেন্সঃ

bd-pratidin.com

bangla.asianetnews.com

পরবর্তী পোস্ট পূর্ববর্তী পোস্ট
মন্তব্য নেই
মন্তব্য যোগ করুন
comment url