ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম সম্পর্কে ভালোভাবে জেনে নিন আজই।

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম সম্পর্কে জানতে প্রতিনিয়ত মানুষ গুগলে সার্চ করে থাকেন। চেক হলো আদি এবং খুবই নির্ভরযোগ্য একটি মাধ্যম। চেকের মাধ্যমে একটি ব্যাংক একজনের একাউন্ট থেকে অন্য একজনের নিকট বা অন্য কোনো কোম্পানির নিকট নির্দিষ্ট পরিমাণে টাকা হস্তান্তর করার আদেশ দেয়। আর্থিক লেনদেনের জন্য চেক একটি নিরাপদ এবং সুবিধাজনক মাধ্যম। এছাড়া এটি একটি সুরক্ষিত মাধ্যম যেহেতু এটির মাধ্যমে নগদ অর্থের হস্তান্তর করা হয়ে থাকে তাই কোনরকম ক্ষতি বা চুরি হওয়ার ভয় থাকেনা। যেহেতু যার উদ্দেশ্যে চেকটি লেখা হয়েছে সে ব্যতীত অন্য কেউ চেক এর মাধ্যমে টাকা উত্তোলন করতে পারবে না।

বর্তমানে টাকা উত্তোলন করার অনেক মাধ্যম রয়েছে যেমন মোবাইল ব্যাংকিং, ইন্টারনেট ব্যাংকিং,কার্ড, আরো অনেকভাবে টাকা উত্তোলন করা যায়। তবে চেক হলো আদি এবং প্রধানতম একটি মাধ্যম। ব্যাংক থেকে টাকা উত্তোলনের জন্য চেকের নির্দিষ্ট কিছু তথ্য পূরণ করতে হয়। যা একদম সঠিক এবং নির্ভুলভাবে। অন্যথায় টাকা উত্তোলনের ক্ষেত্রে ভোগান্তির শিকার হতে হবে। তাই আমাদের আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনারা জানতে পারবেন। ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম একদম সঠিক এবং নির্ভুলভাবে। তাই চলুন জেনে নেওয়া যাক।

ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম

ব্যাংক চেক লেখার ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম এবং সতর্কতা অবশ্যই অবলম্বন করতে হবে। নয়তো টাকা উত্তোলনে বিভ্রান্তি শিকার হওয়া কিংবা আপনার চেক বাতিল হতে পারে। তাই নিচের নিয়ম এবং সতর্কতা অবলম্বন করুন।

Date:

চেক এর ডান দিকে উপরের অংশে Date নামক একটি অপশন দেখতে পারবেন এবং পাশেই Date লেখার জন্য একটি বক্স থাকবে। প্রায় প্রতিটি ব্যাংকেই তারিখ লেখার নিয়ম থাকে dd/mm/year বিন্যাস ব্যবহার করে। এখানে প্রথম দুটি বক্সে লিখতে হবে তারিখ, দ্বিতীয় দুটি বক্সে লিখতে হবে মাস, এবং তৃতীয় চারটি বক্সে লিখতে হবে সাল। এখানে অবশ্যই যেই দিন টাকা উত্তোলন করবে সেই দিনের তারিখ উল্লেখ করতে হবে। তবে অনেক সময় দেখা যায় অনেকে পরবর্তীতে কাউকে দেওয়ার জন্য আগে থেকেই চেক লিখে রাখেন। সেক্ষেত্রে পরবর্তী তিন মাসের মধ্যে যেকোনো একটি নির্দিষ্ট তারিখ লিখতে হবে তারিখের মধ্যে। কেননা তিন মাস পরে চেক বাতিল হয়ে যায়। সাধারণত একটি চেকের সময়সীমা তিন মাস থাকে।

Pay to:

এই অপশনে আপনাকে আপনি যে ব্যক্তি বা কোম্পানির উদ্দেশ্যে চেকটি লিখছেন সেটির নাম এখানে উল্লেখ করতে হবে। আর টাকা যদি একাউন্টধারি ব্যক্তি নিজেই উত্তোলন করেন তাহলে আপনাকে এই অপশনে self লিখে দিতে হবে। আর যদি অ্যাকাউন্টাধারী ব্যক্তি ছাড়া অন্য কারো নাম এই লাইনে লিখতে হয় সে ক্ষেত্রে bearer লেখাটিকে কেটে দিতে হবে। অন্যথায় উল্লেখিত ব্যক্তি ছাড়া এই টাকা অন্য আর কেউ উত্তোলন করতে পারবে না এই চেক ব্যবহার করে।

The Sum Of Taka:

এই অপশনে যে পরিমাণ টাকা উত্তোলন বা হস্তান্তর করা হবে। সেটিকে কোথায় লিখতে হবে উদাহরণস্বরূপ যদি 10 হাজার টাকা উত্তোলন করা হয় তাহলে সেটিকে কথায় লিখতে হবে, “Ten Thousand Taka” অথবা বাংলায় “দশ হাজার টাকা মাত্র”। এভাবে যে পরিমাণ টাকা উত্তোলন বা হস্তান্তর করা হবে সেটির সংখ্যা লিখতে হবে কথায়।

Taka:

বাম পাশে যে পরিমাণ টাকা আপনি কথায় লিখেছিলেন সেই একই পরিমাণ টাকা এই অপশনে বক্সটিতে লিখতে হবে তবে এবার অংকে। যেমন কথায় যদি আপনি 10000 টাকা লিখেন তাহলে বক্সটিতে “10000” অথবা বাংলায় লিখলে “১০০০০” লিখে দিবেন।

Signature:

অতঃপর ডান পাশে চেকের নিচের দিকে স্বাক্ষর দেওয়ার একটি অপশন পেয়ে যাবেন। সেখানে অ্যাকাউন্টধারী ব্যক্তিকে তার স্বাক্ষর দিতে হবে। এবার সবশেষে চেকের পেছনের পৃষ্ঠায় “Endorse Here” এই লেখাটির নিচে একাউন্টধারী কে আরো দুটি স্বাক্ষর দিতে হবে। এবং এটি হচ্ছে ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম সঠিক এবং নির্ভুলভাবে।

ব্যাংক চেক লেখার কিছু সতর্কতা:

  • pay to অপশনে যাকে বা যে কোম্পানির নিকট চেকটি লিখবেন তার নাম লেখার পর যদি কোন ফাঁকা জায়গা থাকে সেটিকে একটি দাগ টেনে ভরাট করে দিন যাতে চেকটি হারিয়ে গেলেও যেন অন্য কোনো ব্যক্তি এখানে তার নাম না লিখতে পারে।
  • বক্সে যখন অংকে টাকার পরিমাণ লিখবেন তখন অবশ্যই টাকার সংখ্যার শেষে “/=” এটিকে বসিয়ে দিবেন এক্ষেত্রে কেউ এই টাকার সংখ্যার কোনরকম পরিবর্তন করতে পারবে না। 
  • স্বাক্ষর বা সিগনেচার এর জায়গায় অবশ্যই আপনাকে ব্যাংক স্বীকৃত স্বাক্ষর দিতে হবে। অন্যথায় চেকটি বাতিল হয়ে যাবে।
  • চেক লেখার সময় ভাষার দিকে খেয়াল রাখতে হবে এবং অবশ্যই যে কোন একটি ভাষা ব্যবহার করতে হবে। যদি আপনি বাংলায় লিখেন তাহলে পুরো চেকের সবকিছু বাংলায় লিখতে হবে এবং ইংরেজিতে লিখলে পুরো চেকের সবকিছু ইংরেজিতে লিখতে হবে। এবং চেক এর মধ্যে কোনরকম কাটাকুটি বা ওভাররাইট করা যাবে না।

কিছু প্রয়োজনীয় তথ্য:

  • চেক নাম্বার বলতে সাধারনত চেকের মধ্যে থাকা ৬ থেকে ১২ ডিজিটের নাম্বারকে বলা হয়ে থাকে যা প্রতিটি চেক কে আলাদাভাবে চিহ্নিত করে।
  • চেকে কোনরকম মিশ্র ভাষা ব্যবহার করা যাবে না যেকোনো একটি ভাষা ব্যবহার করতে হবে অন্যথায় এটি বিভ্রান্তির সৃষ্টি করতে পারে।
  • একটি চেক এর মেয়াদকাল সাধারণত ১৮০ দিন বা ছয় মাস হয়ে থাকে চেক ইস্যুর তারিখ থেকে। অতঃপর চেকটিকে বাতিল হিসেবে গণ্য করা হয়ে থাকে

প্রিয় পাঠক আশা করি আমাদের আজকের এই আর্টিকেল এর মাধ্যমে আপনি ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম সম্পর্কে একটি পরিপূর্ণ ধারণা পেয়েছেন। ব্যাংক চেক লেখার নিয়ম ছাড়াও আরো এমন প্রয়োজনীয় আর্টিকেল পড়তে আমাদের ওয়েবসাইটটি ভিজিট করুন।

আরও পড়ুন ছেঁড়া-ফাটা ও পুড়ে যাওয়া ও ময়লা হয়ে যাওয়া মানে অচল টাকা?

Similar Posts