পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন – জানুন পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন পদ্ধতি?

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন
Table Of Contents show

আপনি কি বাড়ির জন্য পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন করতে চাইছেন? তাহলে আজই জানুন অনলাইনে কিভাবে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন এর নিয়ম সম্পর্কে। পল্লী বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য অনলাইনে কীভাবে আবেদন করবেন, আবেদনের শর্তাবলী এবং ফি প্রদানের পদ্ধতি বিস্তারিতভাবে এই নিবন্ধে দেখানো হয়েছে।

নতুন বাড়ি তৈরির পর অনেকেই ছুটছেন বিদ্যুতের মিটার জন্য। অনেকেই আবার জানতে চান কিভাবে তাদের বাড়িতে বিদ্যুৎ সংযোগ করা যায় বা একটি নতুন বিদ্যুতের মিটার অর্ডার করা যায়। এর ফলে দালালদের খপ্পরে পড়ে প্রতারণার ফাঁদে পরেন অনেকেই। সাধারণ নাগরিকদের এই সমস্যা দূর করতে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুত সমিতি নতুন সংযোগের জন্য একটি অনলাইন আবেদনের আয়োজন করেছে। সেজন্য আজ আমরা পল্লী বিদ্যুতের মিটারের জন্য অনলাইনে আবেদন করার নিয়ম নিয়ে আলোচনা করব। আসুন জেনে নেই কিভাবে অনলাইনে পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের জন্য আবেদন করা যায়।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন

আবেদন করার জন্য আপনাকে পল্লী বিদ্যুৎ সমিতির কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। অবিলম্বে প্রয়োজনীয় ডকুমেন্টস স্ক্যান করুন এবং আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারে একটি ফোল্ডারে সংরক্ষণ করুন। আপনি মোবাইল ডিভাইস বা কম্পিউটারের মাধ্যমে সহজেই অনলাইনে আবেদন করতে পারেন, তবে কম্পিউটার সবচেয়ে ভালো হবে। এবং সাথে আপনার অবশ্যই একটি ইন্টারনেট সংযোগ থাকতে হবে।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন শর্তাবলী

অনলাইন আবেদন জমা দেওয়ার আগে আপনাকে অবশ্যই কিছু শর্ত পূরণ করতে হবে। আবেদন শুরু করার আগে, আপনি পল্লী বিদ্যুত সমিতির ওয়েবসাইটের হোম পেজে প্রকাশিত শর্তগুলি ভালোভাবে দেখে করতে পারেন। শর্তগুলো নিচে উল্লেখ করা হলো:-

  • আবেদনপত্র জমা দেওয়ার সময়, আবেদনকারীর একটি ছবি এবং জাতীয় পরিচয় ডকুমেন্ট সংযুক্ত করতে হবে।
  • সংযোগ স্থলের মালিকানার প্রমাণ হিসাবে জমির খারিজের/দলিলের স্ক্যান কপি সংযুক্ত করতে হবে।
  • সার্ভিস ড্রপ দূরত্ব (সংযোগ পয়েন্ট থেকে সার্ভিস পোলের/খম্বার দূরত্ব) ১৩০ ফুট হতে হবে।
  • সার্ভিস ড্রপ দূরত্ব সঠিকভাবে পরিমাপ করা আবশ্যক। খুঁটির মধ্যে দূরত্ব সঠিক না হলে তারের দৈর্ঘ্য ছোট/দীর্ঘ হতে পারে। ভুল তথ্য প্রেরণ করলে পরে সংযোগ পেতে বিলম্ব হতে পারে।
  • মোট লোড ৮০ কিলোওয়াটের বেশি হলে, এইচটি সংযোগের নিয়ম প্রযোজ্য হবে।
  • অনলাইন জরিপ শেষে প্রয়োজনীয় অর্থ (আবেদন ফি, সদস্যতা ফি এবং নিরাপত্তা আমানত) জমা সহ সমস্ত নির্দেশাবলী SMS এর মাধ্যমে জানানো হবে।
  • আবেদনপত্রে লাল (*) চিহ্নিত ক্ষেত্রগুলি অবশ্যই পূরণ করতে হবে।
  • গ্রাহককে অবশ্যই নিজের সক্রিয় মোবাইল নম্বর প্রদান করতে হবে।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন করার জন্য কী প্রয়োজন?

একটি নতুন সংযোগ আবেদন করার দুটি উপায় আছে। অর্থাৎ অনলাইন এর মাধ্যমে বা অফলাইনে সরাসরি পল্লী বিদ্যুৎ অফিসে গিয়ে। যাইহোক, আপনি যেভাবেই আবেদন করুন না কেন, নিম্নলিখিত ডকুমেন্ট এর প্রয়োজন।

  • আবেদনকারীর নাম এবং সক্রিয় মোবাইল নম্বর।
  • এন, আই, ডি বা জাতীয় পরিচয় নম্বর এবং স্থায়ী ঠিকানা এবং সংযোগস্থলের ঠিকানা।
  • সংযোগস্থলের জমির মালিকানার বিস্তারিত বিবরণ, দাগ নং এবং খতিয়ান নং (প্রমাণ হিসাবে খারিজের/দলিলের স্ক্যান কপি সংযুক্ত করতে হবে)।
  • আপনি যে ট্রান্সফরমার থেকে সংযোগ করতে চান সেই ট্রান্সফরমারের আওতায় আপনার পাশের গ্রাহকের বই নম্বর এবং অ্যাকাউন্ট নম্বর সংগ্রহ করুন।
  • নিকটতম সার্ভিস পোলের দূরত্ব ১৩০ ফুটের কম বেশি হয় নাকি কম তা ভালোভাবে যাচাই করুন।
  • লাইট, ফ্যান, রেফ্রিজারেটর, টেলিভিশন এবং বিভিন্ন ইলেকট্রনিক ডিভাইসের লোডের হিসাব অনুযায়ী সংযোগটি ব্যবহার করা হবে। অর্থাৎ, ব্যবহৃত ডিভাইসের সংখ্যা এবং কত বিদ্যুৎ খরচ হবে তার হিসাব।
  • ঘরের ওয়্যারিং পরীক্ষা করার জন্য, ক্যাশ মেমোর ছবি বা স্ক্যান কপি সংগ্রহ করুন।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন

আপনি উপরোক্ত শর্ত পূরণ করে এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র সহ অনলাইনে আপনার আবেদন সহজেই জমা দিতে পারেন। অনলাইন সংযোগের জন্য আবেদন করতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করতে হবে৷

আবেদনপত্র পূরণ করুন

অনলাইনে বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য আবেদন করতে নিম্নলিখিত পদক্ষেপগুলি অনুসরণ করতে হবে৷

১ম ধাপ: ওয়েবসাইটে প্রবেশ করুন

মোবাইল বা কম্পিউটারের মাধ্যমে বাংলাদেশ পল্লী বিদ্যুত সমিতি থেকে একটি নতুন সংযোগের জন্য অনলাইনে আবেদন করতে, তাদের নিজস্ব ওয়েবসাইট rebpbs.com এই লিঙ্কে যান। এই লিংকে প্রবেশের পর নিচের পেজটি আপনার সামনে চলে আসবে।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন

২য় ধাপ- বিদ্যুৎ অফিস, যোগাযোগ এবং আবেদনকারীর তথ্য পূরণ করুন

ওয়েবসাইটে প্রবেশ করার পরে, আপনি সেই পৃষ্ঠায় বিভিন্ন পেইজ দেখতে পাবেন। এখান থেকে আবেদনের উপর ক্লিক করলে ৭টি মেনু দেখতে পাবেন। এখন প্রথমে আপনি আবেদন করুন এ ক্লিক করুন। অনলাইন আবেদনপত্র ফর্মটি আপনার সামনে উপস্থিত হবে।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন

এই ফর্মে, লাল রঙে (*) চিহ্নিত তথ্যসমূহ অবশ্যই পূরণ করতে হবে। আপনার এলাকা অনুযায়ী জেলা পল্লী বিদ্যুত সমিতি এবং জোনাল অফিসের তালিকা থেকে নির্বাচন করুন।

একটি একক বাড়ির জন্য সংযোগের হার হিসাবে এলটি-এ (আবাসিক) নির্বাচন করুন৷ এছাড়াও, বহুতল ফ্ল্যাট বাড়ির ক্ষেত্রে এমটি-এ (আবাসিক) নির্বাচন করুন।

তারপর আবেদনকারীর বিবরণ বিভাগে, লাল রঙ (*) দ্বারা চিহ্নিত কলামগুলিতে নাম, পিতার নাম সহ পূরণ করতে হবে। উপরন্তু, ইংরেজিতে লেখার জন্য অনুরোধ করা হয়েছে সেই সমস্ত কলাম অবশ্যই ইংরেজিতে লিখতে হবে।

যেমন জাতীয় পরিচয়, জন্ম তারিখ, মোবাইল নম্বর, ইমেইল, TIN নম্বর, পাসপোর্ট, টেলিফোন নম্বর। এই তথ্য ইংরেজিতে লিখতে হবে।

৩য় ধাপ: স্থায়ী ঠিকানা এবং প্রস্তাবিত সংযোগ স্থলের বিবরণ বিস্তারিত লিখুন

আপনাকে প্রথমে বিদ্যুৎ অফিসের বিবরণ, সংযোগস্থলের বিবরণ এবং আবেদনকারীর বিবরণ পূরণ করতে হবে, এরপর একই ফর্মের নীচে প্রস্তাবিত সংযোগস্থলের স্থায়ী ঠিকানা এবং স্থায়ী বিবরণ রয়েছে।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন

এখানে গ্রাহকের দেওয়া আইডি কার্ড অনুযায়ী স্থায়ী ঠিকানা পূরণ করুন। অর্থাৎ, ন্যাশনাল আইডি কার্ডে উপস্থিত স্থায়ী ঠিকানা অবশ্যই পূরণ করতে হবে। লাল (*) দ্বারা চিহ্নিত তথ্যগুলো ঠিকানা ঠিকানা প্রদানের ক্ষেত্রে অবশ্যই সম্পূর্ণ করতে হবে।

প্রস্তাবিত সংযোগস্থলের বিবরণ সম্পূর্ণ করার সময়, আপনি যে স্থানে সংযোগ স্থাপন করতে চান সে স্থান সম্পর্কে আপনাকে অবশ্যই বিস্তারিত তথ্য প্রদান করতে হবে। তবে জায়গার নামজারী/দলিলের কপি সংযুক্ত করবেন, এবং তথ্যগুলো অবশ্যই সেই জায়গার হতে হবে যেখানে আপনি নাম/ডকুমেন্ট সংযুক্ত করবেন।

৪র্থ ধাপ – জিওগ্রাফিক, সংযোগ, লোড, ডিমান্ডেড লোড তথ্য সম্পূর্ণ করুন

মিটার আবেদন পদ্ধতি?

জিওগ্রাফিক তথ্য সঠিকভাবে সম্পূর্ণ করতে নিকটতম সার্ভিস পোল থেকে সংযোগস্থলের দূরত্ব পরিমাপ করুন। কারণ মাপ ঠিক না হলে ক্যাবল বা তার ও খুঁটিতে সংযোগ পেতে সমস্যা হতে পারে।

একই ট্রান্সফরমারের অধীন সংলগ্ন গ্রাহকদের বই নং অ্যাকাউন্ট নং, মিটার নং এবং পোল নং (ইংরেজিতে)। এর পরে, আবেদনের প্রকৃতি যেমন স্থায়ী/অস্থায়ী তা এখানে নির্ধারণ করুন।

পরবর্তী অংশে, লাইট, ফ্যান এবং অন্যান্য বৈদ্যুতিক ডিভাইসের সংখ্যা নির্ধারণ করুন যা বাসায় ব্যবহার করা হবে। শেষে বাড়ি/প্রতিষ্ঠানের অবস্থান লিখুন এবং প্রয়োজন মনে করলে (বাংলা) মন্তব্য করুন।

৫ম ধাপ: প্রয়োজনীয় ডকুমেন্ট আপলোড করুন এবং সম্মতি প্রদান করুন

মিটার আবেদন পদ্ধতি?

এই পর্যায়ে আপলোড করুন ছবি, জাতীয় পরিচয় পত্র এবং খারিজ। আপনি যদি এটি আপলোড করেন তবে ফর্মে উল্লিখিত আকারে বা সাইজে আবেদন করার আগেই এটি আপনার মোবাইল বা কম্পিউটারের একটি ফোল্ডারে সংরক্ষণ করুন। তাহলে আপনি সহজেই ডকুমেন্টটি আপলোড করতে পারবেন।

তারপর পল্লী বিদ্যুত সমিতির সকল শর্ততে আপনি একমত পোষণ করছেন এই মর্মে পাশের ফাঁকা বাক্সে একটি টিক চিহ্ন দিন।

অবশেষে একটি ক্যাপচা কোড (ইংরেজিতে) পূরণ করুন এবং (সংরক্ষণ করুন) এই বোতামে ক্লিক করুন। এটি আপনার আবেদন প্রক্রিয়া সম্পূর্ণ করবে।

আবেদনপত্র প্রিন্ট করুন

আবেদনপত্র পূরণ করার সমস্ত কাজ শেষ করার পরে, আপনি যখন নীচের সংরক্ষণ বোতামে ক্লিক করবেন, আপনাকে একটি ট্যাকিং নম্বর এবং একটি পিন নম্বর প্রেরণ করা হবে। অবিলম্বে এটি লিখুন বা স্ক্রিনশট নিয়ে রাখুন, কারণ পরবর্তীতে আপনার আবেদনের বর্তমান বা সংশোধন সহ যেকোনো তথ্য জানতে এই ট্যাক নম্বর এবং পিন নম্বরের অবশ্যই প্রয়োজন হবে।

তারপর অনলাইনে পল্লী বিদ্যুৎ মিটারের আবেদনপত্র ডাউনলোড করে এটি প্রিন্ট করুন।

বাড়ির ওয়্যারিং সম্পন্ন করুন

আপনার বৈদ্যুতিক সংযোগের জন্য বাড়িতে হাউজ ওয়্যারিং সম্পূর্ণ হয়েছে তা নিশ্চিত করার জন্য এই পদক্ষেপ। গ্রাউন্ড রড ক্রয়ের মেমো/রসিদ, ট্যাকিং নম্বর, এবং পিন নম্বর দিয়ে নিশ্চিত হওয়ার পর হাউস ওয়্যারিং ধাপটি সম্পাদন করতে হবে।

এর পরে, আপনাকে ওয়েবসাইটের হোম পেজের মেনু বারে হাউস ওয়্যারিং নিশ্চিত করুন লিঙ্কে ক্লিক করতে হবে। এই লিঙ্কে ক্লিক করলে নিচের ইন্টারফেসটি আপনার সামনে ওপেন হবে। ফর্মে প্রথমে ট্যাকিং নম্বর এবং তারপর পিন নম্বর লিখুন এবং সাবমিট বোতামে ক্লিক করুন।

ট্যাকিং নম্বর এবং পিন নম্বর জমা দেওয়ার পরে, আপনাকে বাড়ির হাউস ওয়্যারিং নিশ্চিত করণের তথ্যের জন্য জিজ্ঞাসা করা হবে। যেমন হাউস ওয়্যারিং নিশ্চিত হয়েছে তা নির্বাচন করুন এবং গ্রাউন্ডিং রডের মেমো/রসিদ নম্বর ইংরেজিতে লিখুন।

এর পরে, গ্রাউন্ড রডের মেমো/রসিদ আপলোড করুন। তারপর বাড়ির ঠিকানা লিখুন, ক্যাপচা কোডটি পূরণ করুন এবং সাবমিট বাটনে ক্লিক করুন। সাবমিট বাটন ক্লিক করার পরই, আপনার বাড়ির ওয়্যারিং নিশ্চিত করা হয়েছে, এইরকম একটি বার্তা স্ক্রিনে প্রদর্শিত হবে।

আবেদন এর সংযোগ ফি প্রদান করুন

ফি দুইভাবে দেওয়া যায়। যথা-

  • সংশ্লিষ্ট বিদ্যুৎ অফিসে বা নির্ধারিত ব্যাংকে সরাসরি অর্থ প্রদান।
  • রকেট দ্বারা অর্থ প্রদান।

রকেট দ্বারা অর্থ প্রদান

তবে সংযোগের ফি সরাসরি অফিসে পরিশোধ করা ভালো।

পল্লী বিদ্যুৎ আবেদন ফি কত?

মিটার অর্ডার করতে মোট ফি ১১৫ টাকা (একশ পনেরো) মাত্র। আপনি সরাসরি অফিসে বা রকেটে জমা করুন না কেন খরচ আসবে একই।

আবেদনের বর্তমান অবস্থা পরীক্ষা করুন।

মিটার আবেদন পদ্ধতি?

আপনার অনলাইন আবেদনের বর্তমান অবস্থা জানতে হবে। আবেদনটি গৃহীত হয়েছে কিনা বা অন্য কোন সমস্যা আছে কিনা তা জানতে rebpbs.com এ যান। এর পরে, অ্যাপ মেনু বারে “আবেদনের সর্বশেষ অবস্থা জানুন” মেনুতে ক্লিক করুন।

মিটার আবেদন পদ্ধতি?

আপনার সামনে প্রদর্শিত পৃষ্ঠায় ট্যাকিং নম্বর এবং পিন নম্বর জমা দিন। আপনার আবেদনের সর্বশেষ অবস্থা জানতে (সাবমিট করুন) বাটনে ক্লিক করুন।

শেষ কথা

এই সমস্ত সময় আমরা পল্লী বিদ্যুৎ মিটার আবেদন বা পল্লী বিদ্যুৎ মিটার অনলাইন আবেদনের নিয়ম নিয়ে আলোচনা করেছি। আমি আশা করি নিবন্ধটি সম্পূর্ণ পড়ার পরে আপনি সহজেই বাড়িতে পল্লী বিদ্যুৎ মিটার ব্যবহার করতে পারবেন।

আরও জানুন – ডিজিটাল প্রিপেইড মিটার এর প্রয়োজনীয় ‘USSD’ ডায়াল কোডস

Similar Posts

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *